-->

Ethical Hacking Free Course: (Part-4) - sobuj vai

    hacking,hacker,hacking the government,hack,wifi hacking,hackers,hacking tutorial,password cracking,how to hack,car hacking,suv hacking,hacking a car,hacking cars,life hacking,jeep hacking,auto hacking,brain hacking,hacking a jeep,hacking guide,hacking jeeps,learn hacking,hacking tipps,cracking,hacking course,russia hacking,russian hacking,hacking hypixel,android hacking,hacking scammer,hacking a scammer,fortnite hacking,hacking,ethical hacking,bangla,bangla hacking,bangla hacking tutorial,hacking bangla video,ethical hacking bangla,bangla hacking book,bangla android hacking,bangla ethical hacking,android hacking,bangla tutorial,hacking bangla book,hacking tools bangla,hacking in bangla;,hacking book in bangla,hacking book,website hacking bangla,facebook hacking bangla,hacking tutorial bangla,facebook id hacking bangla,technical bangla,termux,termux tutorial,tutorial termux,tutorial,termux tutorials,termux beginner hindhi tutorials,termux indonesia,tutorial intalar termux,script termux,termux app tutorial,termux tools,termux hacking tutorial,termux turorials,termux apk,termux scripts,cara menggunakan termux,tutorial android,tutorial hacking,termux hacking,termux hacking no root,using termux,tools termux,termux basic commands,cara install termux,hacking,hacking tools,ethical hacking,hacker tools,hacking tools download in dark web,tools,computer hacking,hacking tool,hacking tutorial,hacking tool guide,hacking website,nsa hacking tools,hacking wifi,hacking apps,easy hacking tools,top 5 hacking tools,free hacking tools,hacking tool tutorial,all in one hacking tool,phone hacking tools,hacking tools bangla,dying light hacking tool,deep web hacking tools,হ্যাকিং,ফেসবুক হ্যাক,ফেসবুক হ্যাকিং,ফেসবুক পাসওয়ার্ড,হ্যাকিং কি?,হ্যাক,হ্যাক করবো,হ্যাক ফেসবুক,ফেসবুক হ‍্যাকিং,আইডি হ্যাক,ফেসবুক নাম,ফোন হ্যাকিং ট্রিকস,সেরা ৫ টি হ্যাকার,how to hack wifi,wifi hack,how to hack wifi password,hack wifi,hack wifi password,wifi hack 2019,hack,wifi,how to wifi hack,wifi password hack,wifi hacking,how to hack wifi without root,free wifi,wifi password,hack wifi key,how to hack any wifi,wifi hack password,how to hack wifi in android,wifi hacker app,hacker,hack wifi without root,wifi hacking system,hack wifi password android,facebook hack,hack facebook,facebook,how to hack facebook,hack facebook account,hack,facebook hacker,how to hack facebook accounts,how to hack facebook account,hack friend facebook account,how to hack facebook password,facebook account hack,facebook hacking,hack facebook account in one click,hacking facebook,hacking facebook account,hack girlfriends facebook,how to hack facebook messenger,facebook tricks,ethical hacking,hacking,ethical hacking course,ethical hacker,ethical hacking tools,ethical hacking steps,ethical hacking career,ethical hacking in hindi,how to learn ethical hacking,ethical hacking training,ethical hacking tutorials for beginners,certified ethical hacker,what is hacking,learn hacking,ethical hacking uses,ethical hacking free,ethical hacking hindi,ethical hacking phases,ethical hacking basics
    Ethical Hacking Free Course: (Part-4) - sobuj vai
    যারা অন্য পর্ব গুলো পড়তে চান
    Ethical Hacking Free Course: (Part-1)
    Ethical Hacking Free Course: (Part-2)
    Ethical Hacking Free Course: (Part-3)
    Ethical Hacking Free Course: (Part-4)
    Ethical Hacking Free Course: (Part-4)
    Ethical Hacking Free Course: (Part-6)


    এথিক্যাল হ্যাকিং ফ্রী কোর্সঃ পর্ব - ০৪; ওয়্যারলেস নেটওয়ার্কিং (বেসিক ১)

    অনেক দিন পরে শুরু করলাম, কেমন হবে জানি না। আমি জানি আমি সবুজ আপনাদেরকে তেমন ভালোমতো বুঝাতে পারিনা। তাই যদি কিছু ভুল হয়ে থাকে, তাহলে আমাকে ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন এবং নিজগুণে ক্ষমা করে দিবেন।(এথিক্যাল হ্যাকিং ফ্রী কোর্সঃ পর্ব -০৪,) ওয়্যারলেস নেটওয়ারকিং (বেসিক ১) এ আপনাকে স্বাগতম। গত পর্বে আমারা নেটওয়ার্কিং এর সমস্ত বিষয় গুলো জেনেছি ।

    আজ আমরা আলোচনা করবো ওয়্যারলেস নেটওয়ার্কিং নিয়ে, তো বেশি কথা না বলে আসুন শুরু করা যাক ।

    ওয়্যারলেস নেটওয়ার্ক কি?

    ওয়্যারলেস নেটওয়ার্ক হচ্ছে রেডিও ওয়েভ দিয়ে পরিচালিত নেটওয়ার্ক। এটা মূলত বাকি ১০ টা ল্যান কানেকশনের মতই কিন্তু এখানে তারের বদলে একাধিক কম্পিউটার রেডিও ওয়েভের মাধ্যমে কানেক্টেড হয়ে থাকে। এখানে কম্পিউটার বলতে আপনি মোবাইলকে ধরতে পারেন আবার আপনার কম্পিউটার কেও ধরতে পারেন। কিন্তু একে অপরের সাথে কানেক্ট হতে চাইলে আপনাকে কোন মাধ্যমের সাহায্য নিতে হবে যেমন ধরুন ওয়াইফাই রাউটার, আপনাকে ইন্টারনেটের সাথে কানেক্ট হতে হলে রাউটারের সাথে আগে কানেক্ট হবে তারপরে আপনি ইন্টারনেটে কানেক্ট হতে পারবেন। তো বুঝতে পেরেছেন হইতো এখন আসি পরের কথায়, আপনার মাথায় প্রশ্ন আসতে পারে ওয়্যারলেস নেটওয়ার্কেও কি LAN, PAN, WAN, MAN আছে কি না? হ্যা, বন্ধুরা আছে। আপনাকে বুঝতে হবে ওয়্যারলেস শুধু মাত্র একটি নেটওয়ার্ক সিস্টেম। সাধারণ ইথারনেট কানেকশন বা ক্যবল কানেকশন যেভাবে কানেক্টেড হয়, ওয়্যারলেস নেটওয়ার্ক সেভাবে কানেক্টেড হয় না। পার্থক্য শুধুমাএ এই জায়গাতেই আর কিছু না। ওয়্যারলেস নেটওয়ার্কেরও রয়েছে LAN, PAN, WAN, MAN। আসুন আজ সংক্ষেপে জেনে নিই এই গুলো সম্পর্কেঃ ওয়্যালেস নেটওয়ার্ক কি!

    (ওয়্যারলেস লোকাল এরিয়া নেটওয়ার্ক বা WLAN)

    WLAN নিয়ে আলোচনা করার আগে আমি বলে রাখি,আজ শুধু এটা নিয়েই আলোচনা করবো, বাকি সকল নেটওয়ার্ক গুলো নিয়ে আমি বিস্তারিত আলোচনা করবো না, কেননা, এই গুলো নিয়ে এর আগে আলোচনা করা আছে। WLAN বুঝার আগে আপনাকে বুঝতে হবে LAN কি?

    একাধিক কম্পিউটার কোন ক্যাবলের মাধ্যমে একে অপরের সাথে সংযুক্ত হয়ে যে নেটওয়ার্ক তৈরি করে সেটাই ল্যান। কিন্তু আপনার মাথায় প্রশ্ন আসতে পারে তাহলে আমরা ব্রডব্যান্ড ব্যবহার করি সেটাও তো ল্যান লাইনের মাধ্যমে আমাদের ইন্টারনেট দিয়ে থাকে। ঠিক তখনি আপনার মাথা চন্দ্রবিন্দু হয়ে যায়, কিন্তু এখানে চিন্তা করার কিছুই নেই। আপনি শুধু ঠান্ডা মাথায় একটু ভাবুন আপনি যেই কম্পিউটার ব্যবহার করছেন তার একটা প্রাইভেট আইপি আছে কিন্তু ইন্টারনেটে আপনার আইপি চেক করলে কেন অন্য আইপি দেখায়? কেননা আপনার আইপি হিসাবে তখন কাউন্ট করা হয় আপনার আইএসপির আইপিটাকে, এর মানে আপনার প্রাইভেট আইপিটা হাইড হয়ে গেছে, কিন্তু কেন? এবার আরেকটু ভাবুন তো আপনি শুধু আপনার আইএসপি থেকে কানেকশন নিয়েছে? নাহ আরো অনেকেই নিয়েছে, সবার কিন্তু একই সম্যসা দেখা দিচ্ছে, কিন্তু কেন? কেন? কেন? এর কারণ হচ্ছে আপনি কিন্তু লোকাল এরিয়া নেটওয়ার্কের মাঝেই আছেন কিন্তু সেটা আপনার আইএসপির সাপেক্ষে। আমার কম্পিউটার আর , আপনার কম্পিউটার আর যদি অন্যান আরো অনেকগুলি কম্পিউটারের সাথে কানেক্ট থাকে, তাহলে তো সেটা লোকাল এরিয়া নেটওয়ার্ক হবে। আর যেই কম্পিউটার থেকে আপনাদের নিয়ন্ত্রণ করা হয়, সেই কম্পিউটারটা থাকে আপনার আইএসপির কাছে। ঠিক এই কারনে আপনার আইএসপির এফটিপি সার্ভার থেকে ডাওনলোড করলে অনেক ভাল স্পিড পেয়ে থাকেন, যা আপনি ইন্টারনেটের সাথে যুক্ত অন্য কম্পিউটার থেকে পাবেন না। কিন্তু আপনি যখন অন্য কম্পিউটারে ঢুকতে যাচ্ছেন অব্যশই সেটা হতে হবে আপনার লোকাল এরিয়ার বাইরে। তখন আপনি ঢুকছেন আপনার আইএসপির কম্পিউটারের সাহায্য নিয়ে আর ঠিক এই কারনেই আপনার আইপি হিসাবে আপনার প্রাইভেট আইপি দেখায় না। অনেক কথা হয়েছে ভাই আর না। এবার আসি WLAN এর কথায়। কি এটা কি আপনাকে বুঝানো লাগবে? বুঝেন নাই ব্যাপার টা? তাহলে আসেন আবার বুঝিয়ে দেই, আর যদি আগেই বুঝে থাকেন থাহলে আপনি আরেকবার বুঝে নেন, বুঝতে গেলে আমি কোন টাকা নেই না। আসলে LAN এর ব্যপারে যা যা বলেছি আপনি শুধু সেটাকে একটু পরির্বতন করে ভাবুন। ল্যানে আপনি ব্যবহার করতেন ক্যাবল, কিন্তু WLAN আপনি ব্যবহার করছেন রেডিও ওয়েভ। এবার ভাবতে পারেন তাহলে আপনার কম্পিউটার হবে যেটা সব কিছু নিয়ন্ত্রণ করবে। আরে ভাই আছে না রাউটার, রাউটারের কাজটাই তো এটা। এটা আপনাকে রেডিও ওয়েব ছড়িয়ে কানেক্ট করে নিবে, আবার আপনার সকল কিছু নিয়ন্ত্রণ করেবে। যদি এর পরেও না বুঝেন, তাহলে সব থেকে ভাল উদাহরন ভাই আপনি কি মিনি মিলিশিয়া খেলেছেন? যদি খেলে থাকেন তাহলে আপনি কি করেন, আপনার আরো বন্ধুর সাথে একসাথে বসে আপনার মোবাইল থেকে সাবাই কে কানেক্ট করে নিয়ে খেলা শুরু করে দিলেন। কিন্তু ভেবে দেখুন আপনি কানেক্ট হয়েছেন কোথায়? কিভাবে? আপনি কানেক্ট হয়েছেন রেডিও ওয়েভের মাধ্যমে আর আর আপনি কানেক্ট হয়েছেন আপনার বন্ধুদের সাথে। এর অর্থ আপনি WLAN কানেক্ট করে নিয়েছেন। শুধু কি তাই আপনার ফোনটা একই সাথে রাউটারের কাজ টাও করে ফেলছে। একটা কথা আমি জানি আপনার মাথায় অনেক চিন্তা ও অনেক প্রশ্ন আসবে LAN ও WLAN নিয়ে আরো আলোচনা করা হবে। কিন্তু বেসিক পর্বে এত কিছু আলোচনা করলে আপনি কিছুই বুঝতে পারবেন না। তাই এবার যাই পরের কাহিনিতে।

    (ওয়্যারলেস মেট্রোপলিটন এরিয়া নেটওয়ার্ক ( WMAN )

    আপনারা হয়তো বুঝতে পেরেছেন WMAN বলতে আমি কি বুঝাতে চেয়েছি? সহজ কথায় WMAN হচ্ছে MAN এর ওয়ারলেস ভার্সন, MAN নেটওয়ার্কে যেখানে তার বা ক্যাবল ব্যবহার করা হত WMAN এ ওয়্যারলেস মানে রেডিও ওয়েভ ব্যবহার করা হয়।এইখানেও আপনাকে যদি WMAN নেটওয়ার্ক কে বুঝতে হয় আপনাকে তার আগে MAN নেটওয়্যার্কে বুঝতে হবে। MAN হচ্ছে মেট্রোপলিটন এরিয়া নেটওয়ার্ক যদি এখানে মেট্রপলিটন এরিয়া নেটওয়ার্ক বলতে বুঝানো হয়েছে অনেক গুলো ল্যান লাইনকে এক সাথে সংযোগ করে নতুন ইন্টারফেস দেয়া। যেমন আমি ঢাকা শহরে থাকি এবার আমার শহরের বিভিন্ন স্থানে ল্যান সংযোগ লাগানো হয়েছে, এখন সব গুলো লাইন আমাদের ঢাকা শহর কভার করে ফেলেছে। এখন এটাই হচ্ছে মেট্রোপলিটন এরিয়া নেটওয়ার্ক। তবে এর সব থেকে বড় উদাহরণ হিসাবে আপনি ধরতে পারেন আপনার ব্রডব্যান্ড কম্পানিকে। এবার আপনি যদি আপনার শহরকে কভার করতে অনেক গুলো ল্যান লাইন কে ওয়্যারলেসের সাথে কানেক্ট করে অনেক যায়গাই স্থাপন করেন এবং সেটার মাধ্যমে আপনি পুরো শহর কভার করেন তবে সেটা হচ্ছে ওয়্যারলেস মেট্রোপলিটন এরিয়া নেটওয়ার্ক। আশা করি বুঝতে পেরেছেন।

    (পার্সোনাল এরিয়া নেটওয়ার্ক (PAN)

    নাম শুনেই হয়তো বুঝতে পেরেছেন PAN আসলে কেমন হতে পরে! হা, ঠিকি ধরেছেন PAN মূলত পার্সোনাল কাজের জন্য ব্যবহার করা নেটওয়ার্ক। এবার আপনি বলতে পারেন ভাই আপনি এইখানে PAN বলেছেন কিন্ত WPAN বলেন নি কেন? আসলে ভাই PAN বলতে গেলে মূলত ওয়্যারলেসের ব্যাপারটাই আসে, তাছাড়া এই ব্যাপারটা নিয়ে হয়তো অনেকেই জানেন না তাই আলাদা করে কিছু লিখি নাই। PAN এর বড় উদাহরন হিসাবে আপনি ধরে নিতে পারেন আপনার মোবাইলের হট স্পটকে। যেখানে আপনি আপনার মোবাইল দিয়ে ওয়েভ ছড়াচ্ছেন এবং আপনার নেটওয়ার্কের আওতাই আরো অনেকে আছে। তবে একটা বিষয় জেনে রাখুন PAN নেটওয়ার্ক কিন্তু LAN নেটওয়ার্কের ক্ষুর্দ সংস্করন। কেননা PAN নেটওয়ার্ক বানাতে গেলে নিশ্চিত ভাবে আপনাকে LAN বা WLAN বানানো লাগবেন। আশাকরি বুঝতে পেরেছেন।

    (ভার্চুয়াল প্রাইভেট সার্ভার) (VPN)

    নাম শুনেই বোঝা যাচ্ছে এই নামটা অনেক আগে থেকেই শুনে এসেছি আমরা, অনেকেই হইতো অনেক কাজেই এটাকে সফটওয়্যার হিসাবে ব্যবহার করে থাকি। কিন্তু এটা কোন সফটওয়্যার না, এটা মূলত হচ্ছে একটা নেটওয়ার্ক। আসুন তাহলে একটু বুঝে নিই, VPN মূলত সার্ভার কেন্দ্রিক নেটওয়ার্ক (সার্ভার কথাটি বোঝানোর জন্য বলা হয়েছে)। এখন সার্ভার টা কি? সার্ভার বলতে এখানে বোঝানো হয়েছে অন্য কোন স্থানে রাখা কম্পিউটার। এর আসলে কোন শরীরি অবস্থান নেই। কিন্তু পৃথিবীর অনেক স্থান থেকে অনেকেই এই সার্ভারের সাথে যুক্ত হতে পারে। এটাকে অনেক ক্ষেত্রে EPN বা Enterprise Private Network বলা হয়ে থাকে। কেননা অনেক ক্ষেত্রে অনেকে এটাকে ক্রয় করে ব্যবহার করে থাকেন।

    (হোম রাউটার কমপ্লিট সেটআপ)

    অনেকে এটা একটি অহেতুক লেখা হিসাবে ধরে নিতে পারেন কিন্তু বিশ্বাস করুন আপনি এটাকে অহেতুক ভাবলেও এটা অহেতুক না। আপনি যদি নিজের সিকিউরিটি নিজে দিতে না পারেন, তাহলে আপনি তো এথিক্যাল হ্যাকার হতে পারবেন না। তাছাড়া শুধু মাএ রাউটার হ্যাক করেই, আপনি অনেক কিছু হ্যাক করার সামর্থ রাখেন। বিস্তারিত ভাবে আপনাদের আস্তে আস্তে শেখানো হবে। তাহলে চলুন জেনে নিই কিভাবে হোম রাউটার কমপ্লিট ভাবে সেট আপ করবেন।

    (বেসিক কনফিগারেশন ও কানেকশন)

    বেসিক কনফিগারশন বলতে এই ধাপে আপনি জানবেন কিভাবে রাউটার টা কানেকশন করানো হয় ও সাধারণ কনফিগারেশন। তাহলে চলুন জেনে নিই।

    ১। প্রথমে আপনার রাউটার টা ল্যান লাইনের সাথে সংযুক্ত করুন।

    ২। এবার আপনার রাউটারের পেছনে দেখেন কিছু পোর্ট বা হাব আছে সেই গুলোর সাথে আপনার ইথারনেট কেবল টা যুক্ত করুন এবং সেটা আপনার কম্পিউটারের ল্যান পোর্টের সাথে যংযুক্ত করুন। যদি কেও ইথারনেট ক্য্যাবল ব্যবহার করতে না চান, সেই ক্ষেত্রে আপনি আপনার রাউটারের বক্সে বা রাউটের পেছনে দেখুন একটা পাসওয়ার্ড দেয়া আছে। এবার আপনি আপনার ওয়াই-ফাইটা সেই পাসওয়ার্ড দিয়ে কানেক্ট করুন। যদিও কিছু কিছু রাউটারের অটমেটিক ভাবে কানেকশন নিয়ে নেয়।

    ৩। এবার আপনার কম্পিউটারের বা মোবাইল ডিভাইসের যেকোন ব্রাউজারে গিয়ে 192.168.1.1 অথবা 192.168.0.1 এই আইপি ঢুকুন। এইটা হচ্ছে আপনার লোকাল আইপি প্রায় সকল রাউটারে এইটাই ডিফল্ট হিসাবে থাকে।

    ৪। আপনার সামনে একটা পেজ আসবে, মানে লগইন পেজ ডিফল্ট ইউজার নেম পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করুন। যেহেতু আমি টিপি-লিঙ্ক রাউটার ব্যবহার করি সেহেতু আমার ডিফল্ট ইউজার নেম ও পাসওয়ার্ড হচ্ছে admin:admin । কিন্তু সকল কোম্পানির রাউটারের ডিফল্ট ইউজার নেম ও পাসওয়ার্ড একই না। সেটা জানার জন্য আপনি আপনার রাউটারের ইন্সট্রাকশন বইটা একটু পড়ে নিন, সেখানে দেওয়া আছে। যদি ৮০% ওয়াই-ফাই ব্যবহার কারী টিপি-লিংক ব্যবহার করে।

    ৫। আপনি এবার একটা পেজ পাবেন, যদিও সব রাউটারে একই ইন্টারফেস না। কিন্তু নিয়ম প্রায় সকল রাউটারের একই। এবার আপনি Quick Setup পেজে ক্লিক করুন। তাহলে আপনি নতুন পেজে ঢুকে যাবেন।

    ৬। এবার আপনি ওপরের মত একটা পেজ পাবেন, যদি প্রথম স্টেপে না পান, তবে Next করবার কোন অপশন থাকতে পারে। যাই হোক আপনি এই পেজে ঢুকার পরে আপনি Auto-Detection ক্লিক করে Next এ ক্লিক করুন। কেননা আপনি যদি না জেনে থাকেন আপনারটা কি কানেকশন, তবে এটা আপনাকে অটোমেটিক সেট আপ পেজে নিয়ে যাবে। যদি আপনার WAN কানেকশনটি PPPoE কানেকশন হয় তবে আপনি একটা পেজ পাবেন। এবার আপনার ইউজার নেম ও পাসওয়ার্ড দিয়ে আপনি লগইন করে ফেলুন। যদি আপনি এটা না জানেন, তবে আপনার আইএসপির সাথে যোগাযোগ করে ইউজার নেম ও পাসওয়ার্ড নিয়ে নিন। যদি আপনার Static IP বা Real Ip হয় তবে আপনার সামনে একটি পেজ আসবে, সেইখানে আপনার আইপি এন্ড্রেস ও গেটওয়ে মাস্ক সব কিছু বসিয়ে সেভ করিয়ে দিন। এই গুলো আপনি আপনার আইএসপি কোম্পানির কাছে থেকে নিয়ে নিবেন।

    (ওয়াই-ফাই সেট আপ)

    যেহেতু আপনি ওয়াই-ফাই চালাবেন তাই রাউটার কিনেছেন এখন তো আপনাকে ওয়াই-ফাই সেট আপ করতে হবে। আসুন দেখে নিই কিভাবে ওয়াই-ফাই সেট আপ করবেন।

    ১। প্রথমে আপনি Wireless বা Wireless Settings এ যাবেন, সেই খানে থেকে আপনি আপনার SSID বা আপনার ওয়াই-ফাই এর নাম দিবেন ও আপনার password Create করুন।

    ২। ওয়াই-ফাই এর পাসওয়ার্ড ইনক্রিপশন হিসাবে অব্যশয় WPA-PSK/WPA2-PSK সিলেক্ট করে দিন। কেননা এটাই হচ্ছে সব থেকে আপডেট ওয়াই-ফাই ইনক্রিপশন ফরমেট।

    কিভাবে আপনার ওয়াই-ফাইকে আরো সিকিউর করবেন।

    নিরাপত্তা বা সিকিউরিটি হচ্ছে সব গুরুত্বপূর্ণ বিষয়, কেননা আপনি যদি আপনার ওয়াই-ফাইকে যথেষ্ঠ সিকিউরিটি না দিতে পারেন আপনার ওয়াই-ফাই যেকোন সময় হ্যাক হবার সম্ভাবনা থেকে যায়। তাহলে আপনি আর কি করতে পারেন আপনার ওয়াই-ফাই কে নিরাপদ রাখতে? টেনশন নিবেন না, সবুজ বাংলা ইউটিউব হেল্পলাইন আছে আপনার পাশে।

    ১। আমাদের সব থেকে বড় যে ভুলটা করে থাকি, সেটা হচ্ছে আমাদের রাউটারের ডিফল্ট ইউজার নেম ও পাসওয়ার্ড আমরা পরিবর্তন করি না। কিন্তু এটা হচ্ছে সব থেকে বড় ভুল। কেননা ডিফল্ট ইউজার নেম ও পাসওয়ার্ড কোন কিছুতেই ব্যবহার করা ঠিক না। তাই খুব দ্রুত আপনি এটা পরিবর্তন করে নিন। কিভাবে করবেন? প্রথমে আপনি রাউটারের কন্ট্রোল প্যানেলে যান> System Tools > Password এবং আপনি আপনার পাসওয়ার্ড ও ইউজার নেমটি পরিবর্তন করুন।

    ২। আমরা আরেক টা ভুল করি সেটা হচ্ছে, আমাদের ওয়াই-ফাই এর পাসওয়ার্ড আমরা ছোট ও সাধারণ পাসওয়ার্ড দেয়। কিন্তু এটা মারাত্বক একটা ভুল, আপনার পাসওয়ার্ড আপনি কখনো ১৫ ওয়ার্ডের নিচে রাখবেন না। সেটার মাঝে অব্যশয় স্পেশাল কিছু ওয়ার্ড রাখবেন যেমনঃ .<.>?/'”;:[{]})(-_+=@!$#%& এই গুলো, তাছাড়া আপনি upercase, lower case এই গুলো ব্যবহার করবেন।

    ৩। অনেক সময় আমরা আমাদের রাউটারের Fairwall আনেবল করি না। কিন্তু এটা খুব জরুরি কেননা Fairwall হচ্ছে সব কিছু থেকে বাচানোর সুরক্ষা দেওয়াল, আর আপনি যদি সেটা আনেবল না করে থাকেন, তাহলে বুঝতেই পারছেন আপনি কতটা বোকার মত কাজ করেছেন। তাই খুব দ্রুত আপনার রাউটারের fairwall টা আনেবল করে নিন।

    ৪। WPS ডিসেবল করে নিন। যদি আপনি আপনার রাউটার কে অফিসে ব্যবহার না করেন বা WPS এর যদি দরকার না থাকে তবে আপনি ভুলেও WPS Enable রাখবেন না।

    ৫। পাসওয়ার্ড ইনক্রিপশন হিসাবে আপনি WEP ভুলেও ব্যবহার করবেন না। WPA / WPA2 এই গুলোই এখন ভার্নেবল হয়ে গেছে, তাই নতুন ইনক্রিপশন আপডেট হিসাবে এসেছে WPA-PSK/WPA2-PSK। আপনি অব্যশয় এই এনপক্রিপশন ফরমেটটা ব্যবহার করবেন।

    কিভাবে আপনি শক্তিশালী পাসওয়ার্ড সিলেক্ট করবেন?

    অনেক সময় আমরা আমাদের পাসওয়ার্ড দেওয়ার সময় ছোট পাসওয়ার্ড দিয়ে ত্থাকি আর কারণ হিসাবে বলে থাকি আমার বড় পাসওয়ার্ড মনে থাকে না, কিন্তু এটা কোন যুক্তি সংগত কথা না।যদি না জেনে থাকেন কিভাবে শক্তিশালি পাসওয়ার্ড বানাবেন? কিছু স্টেপ আপনি ফলো করুন আশা করছি আপনি আপনার ওয়াই-ফাই টা অনেক সুরক্ষিত রাখতে পারবেন।

    ১। ১৫ টা ওয়ার্ডের নিচে কখনো পাসওয়ার্ড দিবেন না।

    ২। আপনার পাসওয়ার্ডে আপনি স্পেশাল ওয়ার্ড যুক্ত করুন কিছু, যেমনঃ !@#$%^&*()_+}{][ ইত্যাদি

    ৩। নিজে নিজে পাসওয়ার্ডের একটা প্যাটান বানান, এবার সেই প্যাটান হিসাবে পাসওয়ার্ড দিন যেমনঃ আমার নাম Pappu, আমার GF এর নাম Samira (শুধু শেখার জন্য দেওয়া হয়েছে এই নাম গুলো কাকতালিও) ।এখন আমি আমার পাসওয়ার্ড হিসাবে যদি PappuSamira এইটা দিই তাহলে সেটা হবে বোকামি। কখনোই এমন পাসওয়ার্ড দিবেন না। আপনি আগে ভেবে নেই আপনার প্রিয় সংখ্যা কি? যেমন আমার 2 তাই আমি দিব P এর কাছে 2 তাহলে আমার পাসওয়ার্ড টা হচ্ছে 2a22uSamira কিন্তু আপনি যদি চান এটা দিবেন তাহলে আমি আপনাকে এটা রিকমান্ড করবো না কেননা আমি আরো সিকিউরিটি চাই। তাই আমি এবার এই পাসওয়ার্ডের সামনে, পেছনে, মাঝে সব জায়গা তেই কিছু স্পেশাল ওয়ার্ড দিব। কেননা আগেই বলা ছিল ১৫ ওয়ার্ডের নিচে পাসওয়ার্ড দেওয়া যাবে না। তাই 2a22uSamira এর সাথে কিছু যোগ করবো, Pappu > 2a22u এর আগে একটা ! ও একটা @ দেন। কেননা !@ এই ২ টা ওয়ার্ড ব্যবহার হয় Shift মেরে ১ও২ চাপলে তাহলে তো আপনার মনে রাখা সুবিধা। তাহলে পাসওয়ার্ড হচ্ছে !@2a22uSamira , এবার তাহলে আমি মনে রাখার জন্য Pappu ও Samira এই ২ টা ওয়ার্ডের মাঝে + দিব। তাহলে পাসওয়ার্ড হচ্ছে !@2a22u+Samira কিন্তু আমাদের আরো একটা অক্ষর দিতে হবে যেহেতু আমাদের টার্গেট ১৫ তা আক্ষর তাই আমরা আমাদের পাসওয়ার্ডের শেষে একটা ? বসায় দিব তাহলে আমার পাসওয়ার্ড হচ্ছে !@2a22u+Samira? এবার আপনি বলেন আপনার পাসওয়ার্ড মনে রাখা কি খুব বেশি ঝামেলা হয়ে গেল? আমি বলছি না যে আপনি এই প্যাটানে পাসওয়ার্ড বানান আমি শুধু আপনাদের বোঝানোর জন্য এমন টা দিয়েছি। আপনার প্যাটান আপনি নিজে তৈরি করুন।

    আজ অনেক দিন পরে লিখতে বসেছিলাম, জানিনা কেমন হয়েছে। আশা করছি আপনাদের ভাল লাগবে, যদি ভাল লাগে সেটাও কমেন্ট করে জানাবেন, যদি ভাল না লাগে সেটাও কমেন্ট করে জানাবেন। কেননা আপনার কমেন্ট আমাকে উজ্জিবিত করে, আপনাদের কমেন্ট আমাকে নতুন করে ভাবতে শেখায়। আল্লাহ হাফেজ! দেখা হবে পরবর্তী পর্বে।

    Credit  Sobuz biplop Sobuz 

    MR Laboratory Public blog

    আমাদের এই ব্লগে আপনি ও  লিখতে পারবেন । এর জন্য আপনি আপনার লিখা আমাদেরকে ইমেইল করতে পারেন । অথবা আমাদের একজন সদস্য হয়ে ও পোস্ট করতে পারবেন । আমাদের ওয়েবসাইট এর সদস্য হতে চাইলে ভিসিট করুন । আপ্বনার লিখা অবস্যয় শিক্ষনীয় হতে হবে । আমাদের ইমেইল ঠিকানা support@mrlaboratory.com

    ethical hacking,hacking,ethical hacking course,ethical hacker,ethical hacking tutorials for beginners,ethical hacking hindi,what is ethical hacking,ethical hacking in hindi,career in ethical hacking,learn hacking,ethical hacking tutorials,ethical hacking course in hindi,ethical hacking free,curso ethical hacking,ethical hacking steps,learn ethical hacking,ethical hacking tools,ethical hacking basics,hacking,ethical hacking,bangla hacking tutorial,bangla hacking,hacking bangla video,ethical hacking bangla,bangla,bangla tutorial,bangla hacking book,bangla ethical hacking,cmd hacking bangla,hacking bangla book,hacking tools bangla,hacking in bangla;,hacking book in bangla,hacking book,website hacking bangla,besic hacking in bangla,facebook hacking bangla,hacking tutorial bangla,facebook id hacking bangla,facebook,facebook hack,hacking,how to hack facebook,facebook hacking,hack facebook,hack facebook account,hacking facebook account,facebook hacker,how to hack facebook account,how to hack facebook accounts,facebook hack 2019,hacking facebook passwords without software,facebook hacking 2017,facebook account hack,udemy facebook hacking,facebook hacking tools,facebook password hack,prevent facebook hacking,ফেসবুক হ্যাকিং,ফেসবুক হ্যাক,হ্যাকিং,হ্যাকিং কি?,wifi হ্যাক করুন,ফেসবুক হ‍্যাকিং,তাবিব,আইডি হ্যাক,ফোন হ্যাকিং ট্রিকস,সেরা ৫ টি হ্যাকার,হ্যাকার সম্পর্কে,ফেইসবুক হ্যাক,


    Copyright © MR Laboratory
    Newer post Older post

    RELATED ARTICLES