সেবা দেয়ার নামে ম্যালওয়ার ছড়িয়ে কোটি ডলার আয় - MR Laboratory

প্রযুক্তি সেবা দেয়ার নামে ম্যালওয়্যার ছড়িয়ে এক কোটি মার্কিন ডলার হাতিয়ে নেয়ায় দুই জনকে গ্রেফতার করেছে মার্কিন পুলিশ। গ্রেফতার হওয়া ঐ দুই ব্যক্তি হলেন রোমানিয়া লেভিয়া এবং আরিফুল হক। তাদের ছড়ানো ম্যালওয়্যারে শিকার হয়েছে প্রায় সাড়ে সাত হাজার ভুক্তভোগী। এসব ভুক্তভোগীদের কাছে থেকে তারা এককালীন, বাৎসরিক এবং আজীবন এই তিনটি ধারায় একশ’ ডলার থেকে হাজার ডলার পর্যন্ত হাতিয়ে নিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। জানাগেছে, প্রযুক্তি সমর্থনের নামে এক ধরনের ওয়েবসাইট পরিচালনা করছিলেন এই দুই ব্যাক্তি। ওই সাইট থেকে ভুয়া নিরাপত্তা বার্তা পপআপের মাধ্যমে ভুক্তভোগীদের পিসিতে ম্যালওয়্যার দেওয়া হতো। আর ভুক্তভোগীদেরকে বিশ্বাস করানো হতো যে তাদের কম্পিউটারে এক ধরনের বাগ ঢুকেছে। পরবর্তীতে ভুক্তভোগীদের একটি নম্বরে কল করতে বলা হতো। কল করলে ওপার থেকে সমস্যা সমাধানের নাম করে বিভিন্ন কৌশলে তাদের থেকে অর্থ হাতিয়ে নেওয়া হয়েছে। আনীত অভিযোগের ভিত্তিতে লেভিয়াকে লাস ভেগাস থেকে এবং আরিফুলকে নিউ ইয়র্ক থেকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এ ব্যাপারে মার্কিন বিচার বিভাগ থেকে গত বুধবার একটি অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়, সেখানে বলা হয় অভিযুক্ত দুই ব্যক্তি কেন্দ্রীয় পর্যায় থেকে সার্বিক কর্মকাণ্ডটি পরিচালনা করে। ২০১৫ সালের মার্চ মাস হতে ২০১৮ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত তারা এই অপকর্ম চালিয়েছে। Credit digibangla


প্রযুক্তি সেবা দেয়ার নামে ম্যালওয়্যার ছড়িয়ে এক কোটি মার্কিন ডলার হাতিয়ে নেয়ায় দুই জনকে গ্রেফতার করেছে মার্কিন পুলিশ। গ্রেফতার হওয়া ঐ দুই ব্যক্তি হলেন রোমানিয়া লেভিয়া এবং আরিফুল হক। তাদের ছড়ানো ম্যালওয়্যারে শিকার হয়েছে প্রায় সাড়ে সাত হাজার ভুক্তভোগী।
এসব ভুক্তভোগীদের কাছে থেকে তারা এককালীন, বাৎসরিক এবং আজীবন এই তিনটি ধারায় একশ’ ডলার থেকে হাজার ডলার পর্যন্ত হাতিয়ে নিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
জানাগেছে, প্রযুক্তি সমর্থনের নামে এক ধরনের ওয়েবসাইট পরিচালনা করছিলেন এই দুই ব্যাক্তি। ওই সাইট থেকে ভুয়া নিরাপত্তা বার্তা পপআপের মাধ্যমে ভুক্তভোগীদের পিসিতে ম্যালওয়্যার দেওয়া হতো। আর ভুক্তভোগীদেরকে বিশ্বাস করানো হতো যে তাদের কম্পিউটারে এক ধরনের বাগ ঢুকেছে। পরবর্তীতে ভুক্তভোগীদের একটি নম্বরে কল করতে বলা হতো। কল করলে ওপার থেকে সমস্যা সমাধানের নাম করে বিভিন্ন কৌশলে তাদের থেকে অর্থ হাতিয়ে নেওয়া হয়েছে।
আনীত অভিযোগের ভিত্তিতে লেভিয়াকে লাস ভেগাস থেকে এবং আরিফুলকে নিউ ইয়র্ক থেকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।
এ ব্যাপারে মার্কিন বিচার বিভাগ থেকে গত বুধবার একটি অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়, সেখানে বলা হয় অভিযুক্ত দুই ব্যক্তি কেন্দ্রীয় পর্যায় থেকে সার্বিক কর্মকাণ্ডটি পরিচালনা করে। ২০১৫ সালের মার্চ মাস হতে ২০১৮ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত তারা এই অপকর্ম চালিয়েছে।


Credit digibangla
PostTutupComment